Education

Gf/Bf এর কল/মেসেজ হিস্টরি চেক করুন।নতুন ট্রিক!(using MyGP app)

CallSMSHistory!!!

*শেষে রয়েছে সহজ উপায়!!!

আসসালামু আলাইকুম।

আশা করছি সবাই ভাল আছেন।

অনেক আগে আমি দেখিয়েছিলাম কীভাবে গ্রামীনফোনের ওয়েবসাইট থেকে কল/মেসেজ হিস্টরি চেক করতে হয়।সম্প্রতি সেই পদ্ধতিটি বন্ধ করা হয়েছে।তাই আজ আপডেটেড ট্রিক নিয়ে আসলাম।

এই ট্রিকের মাধ্যমে আপনারা মাইজিপি এপ ইউজ করেই ইনকামিং এবং আউটগোয়িং কল/মেসেজ হিস্টরি চেক করতে পারবেন।

টাইপ -১: যারা আগে মাইজিপি ওয়েবসাইট থেকে কল/মেসেজ হিস্টরি দেখতেন তাদের শুধুমাত্র মাইজিপি এপ এবং পুর্বের ইমেইল আর পাসওয়ার্ড মনে থাকলেই চলবে।

টাইপ-২: যারা আগে কখনোই ওয়েবসাইট থেকে ট্রাই করেন নি, অর্থাৎ যারা একেবারেই নতুন করে শুরু করতেছেন  তারা প্রথমত  একটি ‘কানেক্ট ‘ একাউন্ট খুলে ইমেইল ও পাসওয়ার্ড সেট করে নিন।এক্ষেত্রে নিচের স্ক্রিনশট গুলো ফলো করুন।

*যার নাম্বারের হিস্টরি চেক করবেন তার কাছে এককালীন  দুইবার কোড যাবে। এটা কীভাবে কালেক্ট করবেন সেটা আপনার ব্যাপার।   

প্রথমেই গুগলে গিয়ে সার্চ করুন Attach লিখে।

এবার How can I arrange….. এখানে ক্লিক করুন।

নিচের মতো আসলে যার হিস্টরি দেখতে চান তার নাম্বার টি এখানে দিয়ে সাইন ইন এ ক্লিক করুন।

সাইন ইন এ ক্লিক করলে ঐ নাম্বারে একটি কোড যাবে ঐ কোডটি কালেক্ট করে চিহ্নিত জায়গায় বসিয়ে দিয়ে Examine Code এ ক্লিক করুন।

তারপর প্রথমেই আপনাকে একটি নতুন পাসওয়ার্ড সেট করে নিতে হবে।তাই নিচের স্ক্রিনশটটির মতো আসলে প্রথমেই পাসওয়ার্ড এ ক্লিক করুন।

একই পাসওয়ার্ড দুইটি ঘড়েই দিয়ে ‘সেভ করুন’ এ ক্লিক করুন।

এবার আসুন ইমেইল সেট করে নেই।ইমেইল সেট করে নেওয়ার জন্য ঐ নাম্বারে আরেকবার কোড যাবে।

এক্ষেত্রে ইমেইল এ ক্লিক করুন।

ইমেইলে ক্লিক করলে নিরাপত্তাজনিত কারনে আবার আপনাকে লগিন করতে হবে।এক্ষেত্রে কিছুক্ষণ আগেই যে নতুন পাসওয়ার্ড টি সেট করেছেন সেটি দিয়ে সাইন ইন এ ক্লিক করুন।

নিচের মতো আসলে SMS এ ক্লিক করুন।

এখন আরেকবার ঐ নাম্বারে কোড যাবে।ঐ কোডটি কালেক্ট করে এখানে বসিয়ে দিয়ে ভেরিফাই কোড এ ক্লিক করুন।

এবার আপনার নিজস্ব একটি ইমেইল দুইটি ঘড়েই বসিয়ে দিন এবং সেভ করুন।

সেভ করুন এ ক্লিক করলে নিচের স্ক্রিনশট এর মতো আসবে।

এবার যে ইমেইলটি যুক্ত করেছেন, ইনবক্স চেক করে ইমেইলটি ভেরিফাই করে নিন। ভেরিফাই করতে নিচের মতো লিংকটিতে ক্লিক করবেন।

ভেরিফাই হয়ে গেলে এরকম দেখাবে।

বাবুরে!!! কাজ শেষ।!!!

এবার আসুন আসল কাজে যাই।

প্রথমত মাইজিপি এপটি ডাউনলোড করে ওপেন করে নিন।

Check in with GP ID এখানে ক্লিক করুন।

ক্লিক করার পর নিচের মত আসলে check in with e-mail এখানে ক্লিক করবেন।

এরপর কানেক্ট একাউন্ট এ যে ইমেইল এড করেছিলেন সেই ইমেইলটি এখানে দিন এবং Check in এ ক্লিক করুন।

সাইন ইন এ ক্লিক করলে পাসওয়ার্ড দেওয়ার অপশন আসবে।কানেক্ট একাউন্টে যে পাসওয়ার্ড দিয়েছিলেন সেই পাসওয়ার্ডটি এখানে দিন এবং সাইন ইন এ ক্লিক করুন।

সাইন ইন এ ক্লিক করলে সরাসরি মাইজিপি এপের ড্যাশবোর্ডে চলে আসবেন।

এবার কল/মেসেজ হিস্টরি দেখতে নিচের স্ক্রিনশটগুলো লক্ষ্য করুন।

>>

>>

>>

>>

 

তো আশা করছি বুঝতেই পারছেন কীভাবে কী করতে হবে 🙂 তারপরেও কোনো সমস্যা হলে অবশ্যই কমেন্টে জানাবেন।আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করব রিপ্লাই করে সমাধান দেওয়ার।

*সহজ উপায়:

*এতো ভেজাল না করে সরাসরি মাইজিপি এপে গিয়ে যার হিস্টরি দেখতে চান তার নাম্বার দিলে এবং তার কাছে থেকে কোডটি নিয়ে দিলেই তো হয়ে যায়।

হ্যা অবশ্যই এভাবেও হবে।তবে এক্ষেত্রে প্রত্যেকবার লগিন করার সময় ঐ নাম্বারে কোড যাবে।

এক্ষেত্রে যেভাবে করবেন তা স্ক্রিনশট এ দেখিয়ে দিচ্ছি।

>>

>>যার হিস্টরি দেখতে চান তার নাম্বার এখানে দিন এবং সাইন ইন এ ক্লিক করুন।

>> সাইন ইন এ ক্লিক করলে ঐ নাম্বারে একটি কোড যাবে।সেই কোডটি সংগ্রহ করে চিহ্নিত যায়গায় বসিয়ে ডানে তীর চিহ্নতে ক্লিক করুন।

>> অল ডান ব্রো! এবার উপরে দেখানো নিয়মে কল/মেসেজ হিস্টরি চেক করুন।😊

*নোট: এই পদ্ধতিতে একবার লগিন করলে আর লগ আউট করবেন না।নয়তো পুনরায় কোড নিতে হবে।

*আমি উপরে যে ট্রিকটি দেখিয়েছি সেক্ষেত্রে  একবার কোড নিতে পারলেই লাইফটাইম হিস্টরি দেখতে পারবেন কোনোরকম কোড নেওয়া ছাড়াই।😎

রবি,এয়ারটেল,বাংলালিংক সিমের এরকম ট্রিক্স প্রয়োজন হলে কমেন্ট করুন🙂

সকলের সর্বাঙ্গীণ সুস্থতা কামনা করছি।

ধন্যবাদ।

The publish Gf/Bf এর কল/মেসেজ হিস্টরি চেক করুন।নতুন ট্রিক!(the use of MyGP app) seemed first on Trickbd.com.

ফোনের সাউন্ড কম হলে এটা শিখে নিন ৩০০ গুন জোরে বাজবে ১০০% শিউর

হাই ভিউয়ারস
আশা রাখছি সবাই ভালো আছেন যেহেতু ট্রিকবিডির সাথে থাকেন তাহলে আশা করি আরো ভালো আছেন,কারণ এটা একটা বিশাল বড় প্লাটফর্ম যা টেকনোলজির আড্ডা হয়।

আশা করি সবাই ভালো শিখেছেন এবং আরো শিখবেন।

আমি ও অনেক কিছ শিখছি এবং আরো শিখবো এবং আপনাদের ও শিখানোর চেষ্টা করবো।

আমাদের মোবাইল গুলো তুলনামূলক সাউন্ড পাই না যে কোন গান বাজালে সাউন্ড হয় না।
এজন্য আকজে আপনাদের মাঝে এমন একটি অ্যাপস শেয়ার করবো যার মাধ্যমে আপনার মোবাইলের সাউন্ড বেড়ে যাবে আগের থেকে ৩০০ গুন তো বিশ্বাস হচ্ছে না তাই না।অনেক বক বক করে ফেলছি মাপ করে দিয়েন।

চলুন শুরু করা যাক___
প্রথমে অ্যাপস টা ডাউনলোড করুন।
caution আসলে ওকে করুন।

এখন সেটিংস আইকনে ক্লিক করুন।

Settings এ যান এবং ক্লিক করুন।

Most allowed spice up ক্লিক করুন।

দেখুন সাউন্ড % চলে আসছে, আপনার ইচ্ছা মতো % সিলেক্ট করুন।

একটা গান চালিয়ে দেখুন এবং Spice up টেনে দেখুন ১০০% সাউন্ড আগের থেকে বেরে গেছে।

মনে রাখবেন বেশি সাউন্ড দেওয়ার কারণে আপনার মোবাইল স্পিকার নষ্ট হয়ে গেলে আমি ও ট্রিকবিডি টিম দায়ী থাকবে না।নিজের মতো করে সাউন্ড দিন।

এতো সময় ধরে পোষ্টা পড়ার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ ট্রিকবিডির সাথে থাকুন।

The submit ফোনের সাউন্ড কম হলে এটা শিখে নিন ৩০০ গুন জোরে বাজবে ১০০% শিউর gave the impression first on Trickbd.com.

পুরাতন ল্যাপটপের ব্যাটারি দিয়ে হেব্বি শক্তিশালী পাওয়ার ব্যাঙ্ক তৈরি করুন।

হাই ফ্রেন্ডস আশা করি সবাই ভালো আছেন।

আমাদের সবার কম বেশি পাওয়ার ব্যাঙ্গ প্রয়োজন কিন্তু বাজারে পাওয়ার ব্যাঙ্কের অনেক দাম এছাড়া ভালো সার্ভস ও দেয় না এজন্য আজকে আমি আপনাদের শিখাবো কি ভাবে পুরাতন ল্যাপটপের ব্যাটারি দিয়ে হেব্বি শক্তিশালী পাওয়ার ব্যাঙ্ক তৈরি করা যায়।

এজন্য বাজার থেকে আমাদের এই পাওয়ার ব্যাঙ্ক ক্যাছিন টা কিনলে হবে।দাম নিবে ৪০০/৫০০ টাকা।

আর এরকম ল্যাপটপের ব্যাটারি এটা খুলুন।

তারপর এমন ব্যাটারি গুলো পাবেন।এগুলো হলে যথেষ্ট আর পুরাতন ব্যাটারি না থাকলে বাজার থেকে কিনে নেন।

ঐ ক্যাছিন টা খুলুন।

ব্যাটারি গুলো এভাবে সেটআপ করুন।

তারপর দেখুন স্কিনে চার্জ চলে আসছে এবং ক্যাছিন টা লাগান।

এই দুটা পয়েন্ট দিয়ে চার্জ সাবপ্লাই দিবে এবং অপর দুটা দিয়ে চার্জ দিতে পারবেন।

এছাড়া দুটি লাইট আছে রাতে কোন রকম পথ চলা যাবে।

একটা ব্যাটারিরর এমপির ৫ হাজার তাহলে ৮ ব্যাটারি এমপির কত বুঝতেই পারছেন।
৪০০০০ হাজার এমপির পাওয়ার ব্যাঙ্ক আপনি তৈরি করছেন।

অনন্য পাওয়া ব্যাঙ্কের তুলনায় অনেক বার চার্জ দিতে পারবেন কারণ বুজেন তো এটা ল্যাপটপের ব্যাটারি কম শক্তিশালী নয়।

আশা করি আপনাদের পোষ্টা বোঝাতে পেরেছি এবং ভালো লেগেছে।
ভুলত্রুটি হলে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

The publish পুরাতন ল্যাপটপের ব্যাটারি দিয়ে হেব্বি শক্তিশালী পাওয়ার ব্যাঙ্ক তৈরি করুন। seemed first on Trickbd.com.

থ্রিডি পেইড লঞ্চার ফ্রিতে ব্যবহার করুন। দারুণ লঞ্চার।

আজকাল আমরা সবাই কম-বেশি স্মার্টফোন ব্যবহার করি।
আমাদের ফোনে দেওয়া লঞ্চার গুলো আমরা তেমন মন মত পাই না।
আপনি যদি এখনো,
স্মার্ট ফোনের লঞ্চার কাকে বলে, তা না জানেন তবে গুগলে সার্চ দিয়ে জেনে নিন।

তো আজকে আপনাদের মাঝে একটা পেইড বা যেটা টাকা দিয়ে কিনতে হয় ঠিক তেমন একটা লঞ্চার ভাগাভাগি করবো।

আশা করছি,
আপনাদের ভালো লাগবে।
লঞ্চারটির নাম

Subsequent Launcher

যেহেতু পেইড, তাই আমি গুগল ড্রাইভ এ আপলোড করে দিলাম।

ডাউনলোড করে নিন

তারপর এপ্সটি ওপেন করুন

এবার সব পারমিশন গুলো এলাউ করে দিন

আপনার ফোনে এপ্সটি রান হয়ে যাবে, এনজয় এ ক্লিক করুন

দেখুন ফোনের চেহেরা পালটে গেছে

এ লঞ্চারটির দারুন ফিচার টি হচ্ছে থ্রিডি-লুক
থ্রিডি ফিচারটি চালু করতে

তারপর

তারপর

এবার দেখুন আরেক টা লুক দেখাচ্ছে।
এখানে আপনি ডানে-বায়ে স্যয়েপ করে,
খুব স্মুথলি এপ্স টি ব্যবহার করতে পারবেন।

————–

এছাড়াও আপনি চাইলে আপনার মন মত এপ্সটির সব কিছু কাস্টমাইজড করে নিতে পারেন
এপ্স>সেটিংস>

লঞ্চার হিসেবে এপ্স টি ব্যবহারে আমার খুব ভালো লেগেছে।
তাই,
আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম।

সবার সু-সাস্থ্য কামনা করে বিদায় নিলাম।



The submit থ্রিডি পেইড লঞ্চার ফ্রিতে ব্যবহার করুন। দারুণ লঞ্চার। seemed first on Trickbd.com.

আপনার ফোনের রিচেন্ট,হোম,ব্যাক বাটনের নিচে যেকোন টেক্সট এবং ফোটো সেট করুন

আমাদের ফোনের ঠিক নিচে ব্যাক বাটন,হোম বাটন এবং রিচেন্ট বাটন থাকে।

এই বাটন গুলোর নিচে, বাটন গুলোকে ঘিরে এক্সট্রা একটা জাগা রয়ে যায়।
ফলে-ফোনের ডিসপ্লে বডির ভিতরে যা কিছু থাকে সে কন্টেন্ট গুলো,বাটন গুলোর জাগাই আসতে পারে না।
বাটন কে ঘিরে জাগা টা অকেজো হয়ে থেকে যাই।
কিন্তু আপনি চাইলে এখন বাটন এর পাশাপাশি সেই জাগা টা কে একটু কাজে লাগাতে পারেন।
হুম আপনি এখন চাইলে সে বাটন গুলোর নিচে,যেকোন টেক্সট,ফোটো, এনিমেশন বসিয়ে ফোন কে আলাদা একটা লুক দিতে পারেন।
ঠিক এমন,

তো এ কাজটি করার জন্য আপনার একটা এপ্স এর দরকার পড়বে।

ইনস্টল করে নিন।
তারপর ওপেন করুন

এখন পারমিশন গুলো

দিয়ে নিন

পারমিশন দেওয়া হয়ে গেলে,এ জাগাই ক্লিক করুন ফোটো দেওয়ার জন্য।
যেটা আপনার দেওয়া লেখার নিচে শো করবে।
আপনি চাইলে একাধিক ফোটো চুস করতে পারেন।

এবার এখানে দেখুন,
আপনি আপনার ফোটো গুলো কে কতক্ষণ সময়ে উপর-নিচ করাতে চান
সেটা দিতে পারবেন।

এছাড়াও ডানে স্যয়েপ করলে আপনি আরো কিছু সেটিংস পাবেন।
এখানে আপনি ফোটোর উপর লেখা দিতে পারবেন

তারপর যা ইচ্ছা লিখুন

এর নিচে আপনার দেওয়া টেক্সট কে কোন অবস্থানে দেখতে চান।
সেটা খুব সুন্দর ভাবে আপনি কাস্টমাইজড করতে পারবেন।
আপনার দেওয়া টেক্সট এর বিভিন্ন কালার চুস করতে পারবেন।

এপ্স টি আমার কাছে খুবই ভালো লেগেছে।
চাইলে ব্যবহার করতে পারেন।

সবাই ভালো থাকবেন-সুস্থ থাকবেন।

The put up আপনার ফোনের রিচেন্ট,হোম,ব্যাক বাটনের নিচে যেকোন টেক্সট এবং ফোটো সেট করুন seemed first on Trickbd.com.

এখন থেকে একসাথে সব অডিও গানে আপনার নাম ও ছবি বসান।অডিও এডিট।

আমরা সবাই অডিও গান শুনে থাকি,
মাঝে মাঝে আমরা সেই অডিও গানের ভিতর অন্যের নাম, ছবি বা কোন ওয়েবসাইট এর লোগো সেই সাইট এর নাম ইত্যাদি দেখতে পাই।
এখন চাইলে আমরা বা আপনি অডিও গানে আপনার ছবি,নাম সেট করতে পারবেন।
অন্যভাবে বলা যায়,
আমরা যারা ইতিমধ্যেই আমাদের কাজের জন্য বা নিজ প্রয়োজনে অডিও গান এডিট করি,
আমাদের একটা একটা করে অডিও গান এডিট এ খুব বিরক্তি লাগতো!!
কিন্তু এখন আপনি চাইলে,
সব গানে একসাথে আপনার নাম অথবা আপনার ওয়েবসাইট এর নাম সাথে ছবি বসাতে পারবেন!
চলুন দেখি কি ভাবে–,
এপ্স লাগবে একটা

ইন্সটল দিন।

তারপর ওপেন করুন

এখন ব্রাউজ এ ক্লিক করুন

তারপর আপনার গানের ফোল্ডার সিলেক্ট করুন

এর পরের ধাপে,
আপনি আপনার নাম সহ যা যা দিবেন সেটা দিন।
আমি দিলাম না

ARTwork এ ক্লিক করুন ছবি দেওয়ার জন্য।

তারপর +from record এ ক্লিক করে আপনার কাক্ষিত ছবি টি বাচাই করে নিন

তারপর Take away current এ একটা টিকমার্ক দিয়ে Good enough ক্লিক করুন।

এবার রেজাল্ট দেখুন।

তো এভাবে আপনি সব অডিও একসাথে এডিট করতে পারবেন।
আশা করছি,
আপনাদের খুব ভালো লেগেছে।

ফিরে আসবো নতুন কোন কিছু নিয়ে সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন।

The put up এখন থেকে একসাথে সব অডিও গানে আপনার নাম ও ছবি বসান।অডিও এডিট। gave the impression first on Trickbd.com.

বাংলাদেশ দন্ড বিধির ৫১১ ধারা এখন হাতের মুঠোয়।অবশ্যই দেখার অনুরোধ রইলো।

আসসালামু আলাইকুম

সুপ্রিয় পাঠক আপনাকে আন্তরিক সুভেচ্ছা জানাই আমার এই টিউন টি পড়ার জন্য।।।

কষ্ট তখনি লাগে যখন হাজার হাজার ভিজিটর পোস্ট পড়ে উপকৃত হন/নাহয় হয়ে কোন কমেন্ট লাইক না দিয়ে মজা নিয়ে চলে যায় ফলে উৎসাহ না পেয়ে লেখক এর পোস্ট করার রুচি কমে যায়।
যা হোক আশাকরি আপনি এরকম নাহ অবশ্যই মতামত দিবেন↓↓
°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°°

আজকের যে টপিক সেটা হচ্ছে বাংলাদেশের আইন ও সংবিধান ব্যবস্থা

আজকের যে এপসটি শেয়ার করব এই অ্যাপসটির মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন বাংলাদেশের যত সব সংবিধান 1 থেকে 511 পর্যন্ত সবগুলো আপনার হাতের মুঠোয় থাকবে
আপনাদের এলাকায়, মহল্লায় যে কোনো স্থানে যে কোনো সমস্যার সমাধান করতে পারবেন এই ধারা অনুযায়ী
এলাকায় চোর ধরা পড়েছে, এলাকায় হাঙ্গামা, মারামারি হইসে এগুলার উপস্থিত পানিশমেন্ট হিসাবে এইসব ধারা ব্যাবহার করবেন😋

এটির মধ্যে যত ধারা রয়েছে

👉ধারা-১
👉ধারা-২
👉ধারা-৩
👉ধারা-৪
👉ধারা-৫
👉ধারা-৬
👉ধারা-৭
👉ধারা-৮
👉ধারা-৯
👉ধারা-১০
এভাবে
👉ধারা-৫১১ পর্যন্ত জানতে পারবেন ।
————————————————–

তারমধ্যে ধারা-৫৩ টি তুলে ধরলাম

👉ধারা-৫৩ রয়েছে মুত্যু দণ্ড, যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, সস্রম কারাদণ্ড, বিনাসরম কারাদণ্ড, অর্থদণ্ড ইত্যাদি এইসব বিষয়ে বর্ণনা করা হয়েছে।
এভাবেই সব বিষয়ে পারদর্শী হতে পারবেন এই অ্যাপ্লিকেশনটি মাধ্যমে।

☺কিছু স্কিন সর্ট অ্যাড করে দিলাম




আপনার সহযার্থে আপটির ডাউনলোড লিংক নিচে দিয়ে দিলাম

ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন

টিউনটি কেমন হয়েছে তা পুরোটাই আপনাদের উপর নির্ভর করবে। So, কমেন্ট বক্সে লিখে ফেলুন কেমন হয়েছে। আর একটা ধন্যবাদ প্রাপ্য থাকলাম। যদি না বুঝতে পারেন, ১০ বার জিগ্যেস করুন। সমাধান দিতে চেষ্টা করব। রাত জেগে টিউন লিখতে কষ্ট ফিল করি না, তাহলে Answer দিতে দ্বিধা করব কেন.!!
আবারও ধন্যবাদ সবাই কে…

The submit বাংলাদেশ দন্ড বিধির ৫১১ ধারা এখন হাতের মুঠোয়।অবশ্যই দেখার অনুরোধ রইলো। seemed first on Trickbd.com.

মোবাইলের ডায়ালপেডের মধ্যে লুকিয়ে রাখুন আপনার মোবাইলের ছবি, ভিডিও,ফাইল ও কন্টাক্ট খুব সহজে

হ্যালো, ফ্রেন্ডস
কেমন আছেন আপনারা।
আশা রাখছি সবাই অনেক ভালো আছেন।
আজকে আমি আপনাদের সাথে চমৎকার টিপস শেয়ার করবো।
অনেকে অনেক ভিডিও,ছবি বিভিন্ন অ্যাপে লুকিয়ে রাখেন।
তবে আজ দেখাবো কিভাবে সেগুলো ডায়ালপেডে লুকিয়ে রাখবেন যাতে কেউ বুঝতে না পারে।
তো দেখুন কিভাবে মোবাইল ডায়ালপেডে ছবি, ভিডিও হাইড করে রাখবেন।
প্রথমে একটা অ্যাপ লাগবে, ইনস্টল করতে ক্লিক করুন
ইনস্টল হয়েগেলে ওপেন করুন

এরপর এখানে ক্লিক করুন


এবার পারমিশন দিন

টিক মার্কে ক্লিক করুন

যেকোনো একটা প্রশ্ন সিলেক্ট করে উত্তর লিখুন

এবার ৪ ডিজিটের পাসওয়ার্ড দিন

পাসওয়ার্ড আবার দিয়ে কনফর্ম করুন

এবার এখানে

এবার যেটা হাইড করতে চান,যেমনঃছবি,অডিও, ভিডিও ইত্যাদি

+ আইকনে ক্লিক করুন

সিলেক্ট করে carried out এ ক্লিক করুন

দেখুন হাইড হয়েগেছে,গ্যালারিতে গেলে সেটা পাবেন না

আনহাইড করতে আবার symbol এ ক্লিক করে ছবি সিলেক্ট করুন

দেখুন আনহাইড হয়েগেছে

ভিডিও হাইড করতে চাইলে

ভিডিও সিলেক্ট করুন

দেখুন হাইড হয়েগেছে

আবার আনহাইড করতে সিলেক্ট করে

দেখুন আনহাইড হয়েগেছে।আর এভাবে সকলের অজান্তে আপনারা আপনাদের গুরুত্বপূর্ণ ছবি,ভিডিও লুকিয়ে রাখতে পারবেন মোবাইল ডায়ালপেডে ফলে কেউ বুঝতে পারবেনা।
যাইহোক পোষ্টটি কেমন লেগেছে তা অবশ্যই জানাবেন,আর পোষ্টে লাইক দিতে ভুলবেন না।
কোনো কিছু না বুঝলে কমেন্ট করুন।
ধন্যবাদ সবাইকে এতক্ষণ সাথে থাকার জন্য।

The put up মোবাইলের ডায়ালপেডের মধ্যে লুকিয়ে রাখুন আপনার মোবাইলের ছবি, ভিডিও,ফাইল ও কন্টাক্ট খুব সহজে seemed first on Trickbd.com.

আপনার মোবাইলে কল আসলে তার নাম বলবে,মেসেজ আসলে পড়ে শুনাবে,চার্জ দিলে কথা বলবে চমৎকার একটা অ্যাপসের সাহায্যে

হ্যালো, ফ্রেন্ডস
কেমন আছেন আপনারা।
আশা রাখছি সবাই অনেক ভালো আছেন।
আজকে আমি আপনাদের সাথে চমৎকার একটা অ্যাপস শেয়ার করবো।
আপনার মোবাইলে যখনই কোনো মেসেজ, কল আসবে সেটা আপনাকে পড়া লাগবে এমনিতেই পড়ে দিবে।
এমনকি কে কল দিয়েছে আপনাকে সেটাপ বলে দিবে।
তাছাড়া চার্জ দিলেও এমন কাজটি ঘটবে।
যাইহোক কিভাবে এই কাজটি করবেন,এই কাজটি করার জন্য প্রথমে একটা ছোট অ্যাপ লাগবে, ইনস্টল করতে
ক্লিক করুন

ইনস্টল করে ওপেন করুন

যেমন আছে তেমনই থাকবে ওকেতে ক্লিক করুন

পারমিশন Permit করেদিন

এবার sure এ ক্লিক করুন

দেখানো সেটিংসটা অন করেদিন

App notification ক্লিক করুন

এটা permit করেদিন

Sellect app এ ক্লিক করুন

এবার ৩ ডট মেনুতে ক্লিক করুন

Learn all notification ক্লিক করুন

ব্যস কাজ শেষ

এবার আপনার মোবাইলে যখনই কোনো মেসেজ,কল আসবে সেটা আপনাকে পড়ে শুনাবে।
তাছাড়া চার্জ দিলেও কথা বলবে।
যাইহোক পোষ্টটি কেমন লেগেছে তা অবশ্যই জানাবেন,আর পোষ্টে লাইক দিতে ভুলবেন না।
কোনো কিছু না বুঝলে কমেন্ট করুন।
ধন্যবাদ সবাইকে এতক্ষণ সাথে থাকার জন্য।

The publish আপনার মোবাইলে কল আসলে তার নাম বলবে,মেসেজ আসলে পড়ে শুনাবে,চার্জ দিলে কথা বলবে চমৎকার একটা অ্যাপসের সাহায্যে gave the impression first on Trickbd.com.

Key phrase Analysis কি ? কিভাবে কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় ??

Key phrase Analysis কি ? কিভাবে কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয়

আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছেন আপনারা। আশা করি সকলেই অনেক ভালো আছেন। একজন ব্লগার হিসেবে, যদি আপনি কীওয়ার্ড রিসার্চ কি এবং কিভাবে কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয়, এই ব্যাপারে না জেনে থাকেন, তাহলে হয়তো আপনার ব্লগিং ক্যারিয়ারে প্রচুর সমস্যা রয়েছে।

তাছাড়া, কীওয়ার্ড রিসার্চ কেন জরুরি, এই বিষয় নিয়ে আগেই আমি আর্টিকেল লিখে আপনাদের ভালো করে বুঝিয়ে বলেছি।

তবে, আমাকে অনেকেই ইমেইল এবং কমেন্টের মাধ্যমে প্রশ্ন করেছেন যে, “ভাইয়া আপনি নিজের আর্টিকেলের জন্য কীওয়ার্ড রিসার্চ কিভাবে করেন ?”

তাই, আজকের এই আর্টিকেলে আমি আপনাদের, আমার কীওয়ার্ড রিসার্চ করার নিয়ম এবং প্রক্রিয়া খুলে বলবো।

কীওয়ার্ড রিসার্চ কাকে বলে ? কিভাবে করতে হয় কীওয়ার্ড রিসার্চ  ??

দেখুন বন্ধুরা, আজকের এই অনলাইন ব্লগিং প্লাটফর্ম এক ধরণের বিসনেস (trade) এর মতোই এবং, হাজার হাজার লোকেরা একি বিষয় বা area of interest নিয়ে ব্লগিং করা শুরু করছেন। এতে, প্রত্যেক ব্লগার (blogger) দের মধ্যে প্রচুর প্রতিযোগিতার (festival) সৃষ্টি হচ্ছে।

কারণ, আজকাল যেকোনো কীওয়ার্ড (Key phrase), প্রশ্ন, বিষয় বা সমস্যা নিয়ে আপনারা গুগল সার্চ করলে, গুগল আপনাদের অনেক ভালো ভালো সমাধান তার প্রথম পাতায় দিয়ে দেয়।

কিন্তু, একি প্রশ্নের উত্তর বা সমাধান অনেকেরা তাদের ব্লগে পাবলিশ করার ফলে, গুগল বা অন্য সার্চ ইঞ্জিন গুলির কাছে তথ্যের অনেক চয়েস (selection) রয়েছে।

তাই, গুগল ও অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলি, সব থেকে সেরা, search engine optimization pleasant, consumer pleasant, top quality কনটেন্ট থাকা ব্লগ বা ওয়েবসাইট গুলিকে তার সেরা 10 রেজাল্ট (Best 10 Effects) এ দেখিয়ে দেয়। আর, low high quality, deficient search engine optimization optimization থাকা কনটেন্ট বা ব্লগ গুলিকে দ্বিতীয় পেজে দেখানো হয়।

ফলে, গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলির থেকে, কেবল প্রথম পাতায় থাকা ব্লগ বা ওয়েবসাইট গুলি ট্রাফিক বা ভিসিটর্স পেতে থাকে। তাই, যদি আপনার ব্লগে গুগল বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক ও ভিসিটর্স আসছেনা, তাহলে হতে পারে আপনি ভালো কোয়ালিটির আর্টিকেল লিখছেননা।

তাছাড়া, নিজের লিখা আর্টিকেল গুলিতে সঠিক search engine optimization optimization tactics ব্যবহার না করলেও, সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক পাওয়াটা কঠিক হয়ে পরে।

search engine optimization মানে কি ?

কিন্তু, যদি আপনি ভালো কোয়ালিটির আর্টিকেল লিখছেন এবং সাথে সাথে ভালো search engine optimization optimizations করেও সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক পাচ্ছেননা, তাহলে এর কারণ হতে পারে “কীওয়ার্ড রিসার্চ না করাটা“.

আপনি যদি, “key phrase analysis কি“, এবং কিভাবে কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয়, এই ব্যাপারে কোনো জ্ঞান না রেখেই আর্টিকেল লিখছেন, তাহলে SEOর দিক দিয়ে এটা, আপনার সবচেয়ে বরো ভুল।

Key phrase analysis কি ? এই প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য আপনার সবচেয়ে আগেই জেনেনিতে হবে যে “কীওয়ার্ড মানে কি“.

Key phrase মানে কি ? (What Is Key phrase)

ব্লগিং এর ক্ষেত্রে, কীওয়ার্ড (key phrases) হলো এমন একটি বিষয়, যার মাধ্যমে গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন (seek engine) গুলি আপনার ব্লগের এবং ব্লগে লিখা আর্টিকেলের বিষয়ে বুঝতে ও জানতে পারে।

এবং, আপনার আর্টিকেলের লক্ষ্যবস্তু কীওয়ার্ড (centered key phrase) এর ওপরে নির্ভর করেই, সার্চ ইঞ্জিন গুলি আপনার ব্লগে সঠিক ট্রাফিক বা ভিসিটর্স পাঠায়।

যখন আমরা গুগল সার্চে (Google seek) কিছু সমস্যা বা বিষয় নিয়ে সার্চ করি, তখন আমরা কি লিখি ?

“কিভাবে অনলাইন টাকা আয় করবো?”, “কীওয়ার্ড রিসার্চ মানে কি”, “কোন মোবাইল ভাবে?”, “সেরা এন্ড্রয়েড মোবাইল” এবং এরকম কিছু শব্দ বা বাক্য লিখে গুগল সার্চ করি।

এবং আপনারা কি জানেন, গুগল সার্চে লিখা এই ধরণের “শব্দ” বা “বাক্য” গুলোকেই বলা হয় কীওয়ার্ড। যেকোনো কীওয়ার্ড একটি শব্দের হতে পারে বা এক থেকে বেশি শব্দের কোনো বাক্য ও হতে পারে।

যেমন, “on-line source of revenue” এবং “on-line source of revenue methods” দুটোই কিন্তু key phrases.তবে, দুটো থেকে বেশি শব্দের key phrases গুলিকে “keyword” বলে বলা যেতে পারে। সোজা তাইনা ?

এগুলি, ছোট একটি শব্দ হতে পারে বা বরো বাক্য হতে পারে। বেশিরভাগ “key phrases” কিন্তু Three থেকে Four টি শব্দের একটি বাক্য।

আরো সোজা ভাবে বললে, একটি কীওয়ার্ড মানে হলো “আপনি গুগল সার্চে, bing seek বা yahoo seek ইঞ্জিনে যা লিখে সার্চ করছেন” সেই সম্পূর্ণ শব্দ বা বাক্যটি হলো কীওয়ার্ড।

যদি আপনারা আমার লিখা এই আর্টিকেলের ব্যাপারে বলেন, তাহলে এখানে আমি “কীওয়ার্ড রিসার্চ কি”, “Key phrases কি“, “search engine optimization“, “weblog visitors“, “কীওয়ার্ড রিসার্চ করার নিয়ম” এই কীওয়ার্ড গুলি টার্গেট করে আর্টিকেল লিখেছি।

তাই, আমার টার্গেট করা key phrases গুলি নিয়ে যদি কেও গুগলে সার্চ করেন, তাহলে অবশই আমার ব্লগ বা আর্টিকেল গুগল তার সার্চ রেজাল্টে দেখাবে।

তাহলে মনে রাখবেন,

ভিসিটর্সরা গুগলে (সার্চ ইঞ্জিনে) কোন key phrases লিখে অধিক সার্চ করছেন, এবং আপনার লিখা আর্টিকেলে কোন key phrases টার্গেট (goal) করা হয়েছে, এই দুটো কীওয়ার্ড এর মধ্যে মেল্ থাকতে হবে যদি আপনি সার্চ ইঞ্জিন থেকে প্রচুর ট্রাফিক বা ভিসিটর্স পেতে চাচ্ছেন।

এখন, প্রশ্ন হলো “কিভাবে বুঝবেন যে, লোকেরা গুগলে কোন কীওয়ার্ড লিখে বেশি সার্চ করছেন  ?”.

এর উত্তর হলো, “key phrase analysis এর মাধ্যমে“.

কীওয়ার্ড রিসার্চ মানে কি ? (What Is Key phrase Analysis) 0

কীওয়ার্ড রিসার্চ হলো, search engine optimization (search engine marketing) এর একটি এমন গুরুত্বপূর্ণ এবং জরুরি ভাগ, যেখানে জনপ্রিয় এবং সার্চ ইঞ্জিন গুলিতে অধিক পরিমানে সার্চ হওয়া key phrases এবং keyword গুলি খুঁজে বের করা হয়।

তাছাড়া, এই প্রক্রিয়ার দ্বারা আমরা ব্লগের আর্টিকেলের জন্য, লাভজনক এবং লোকেরা রুচি রাখা নতুন নতুন টপিক (subject) এবং keywords খুঁজে পেতে পারি।

যেকোনো আর্টিকেল “seek engine” এর জন্য optimize করার সবচেয়ে প্রথম ধাপ (step) হলো key phrase analysis. এতে, আপনি ভালো ভালো এবং গুগলে অধিক বেশি পরিমানে সার্চ হওয়া key phrases খুঁজে পেতে পারবেন।

এবং, রিসার্চ করে খুঁজে বের করা লাভজনক key phrases goal করে আর্টিকেল লিখে, গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন গুলির থেকে অধিক পরিমানে ভিসিটর্স পেয়ে যেতে পারবেন।

কেন key phrase analysis করাটা জরুরি ?

প্রথম কথা হলো, লাভজনক এবং গুগল সার্চে অধিক বেশি পরিমানে সার্চ হওয়া key phrases গুলি খুঁজে পাওয়ার জন্য এই প্রক্রিয়া করাটা জরুরি।

দ্বিতীয়তে, আপনি যেই বিষয় নিয়ে আর্টিকেল লিখছেন, সেই বিষয়ে গুগল সার্চে কতটা সার্চ হচ্ছে, লোকেরা আপনার লিখা আর্টিকেলের বিষয় নিয়ে গুগলে সার্চ করছেন কি না, বা যদিও সার্চ করছেন তাহলে কতটুকু, সেই সব বেপারে জেনে নিতে পারবেন।

মনে রাখবেন, আপনি যেই key phrase টার্গেট করে আর্টিকেল লিখছেন, সেটা যদি মাসে 100 থেকেও কম সার্চ হচ্ছে, তাহলে সেই আর্টিকেল লিখে কোনো লাভ হবেনা।

আপনি অনেক অনেক কম পরিমানে ট্রাফিক বা ভিসিটর্স সেই key phrase নিয়ে লিখা আর্টিকেলে পাবেন।

তাই, অনেক সময় দেখা যায় যে ব্লগাররা অনেক ভালো ভালো কোয়ালিটির কনটেন্ট লিখেন, এবং তাও তাদের ব্লগে সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক একেবারেই আসছেনা।

এটার একমাত্র কারণ কিন্তু, “কীওয়ার্ড রিসার্চ না করে আর্টিকেল লিখা“.

আপনি যদিও ভালো ভালো আর্টিকেল লিখছেন এবং আর্টিকেলটি প্রচুর ভালো ভাবে search engine optimization optimization করেছেন, কিন্তু হতে পারে আপনার টার্গেট করা কীওয়ার্ড নিয়ে গুগল সার্চে একেবারেই সার্চ হয়না।

আপনি হয়তো ভাবছেন, সব সঠিক ভাবে করার পরও কেন “ব্লগে ট্রাফিক ও ভিসিটর্স আসছেনা“.

তাই, ব্লগের আর্টিকেল লিখার আগেই কীওয়ার্ড রিসার্চ করার উদ্দেশ্য এটাই যে, যেই key phrase টার্গেট করে আপনি আর্টিকেল লিখবেন, সেটা যাতে গুগল সার্চে মাসে ভালো সংখ্যায় সার্চ হয়।

যত বেশি পরিমানে (500 থেকে বেশি) আপনার টার্গেট করা key phrase গুগল সার্চে সার্চ হবে, আপনার আর্টিকেলে ততটাই বেশি ট্রাফিক বা ভিসিটর্স আসার সুযোগ হয়ে দাঁড়াবে।

শেষে, মনে রাখবেন যে, ব্লগিং ক্যারিয়ারে অনেক জলদি সফলতা পাওয়ার মূল মন্ত্র হলো “অধিক জনপ্রিয় এবং অধিক বেশি পরিমানে সার্চ হওয়া কীওয়ার্ড টার্গেট করে আর্টিকেল লিখা।

যেটা আমি নিজেই করছি।

এবং, এরকম লাভজনক কীওয়ার্ড কেবল “key phrase analysis” এর প্রক্রিয়া ব্যবহার করে বের করা সম্ভব।

কীওয়ার্ড রিসার্চ করার নিয়ম ও প্রক্রিয়া কি ?

লাভজনক, জনপ্রিয় এবং গুগল সার্চে অধিক বেশি পরিমানে সার্চ হওয়া প্রশ্ন, বিষয় বা কীওয়ার্ড গুলির ব্যাপারে জানার জন্য বা সেগুলি খুঁজে বের করার জন্য, আমরা কিছু “Key phrase analysis gear” ব্যবহার করতে হয়।

এমনিতে এরকম অনেক ভালো ভালো gear রয়েছে।

কিন্তু, বেশিরভাগ paid gear এবং সেইগুলি ব্যবহার করার জন্য আপনার অনেক বেশি পরিমানে টাকা দিতে হবে।

যেমন,

Ahrefs.com

Key phrase Software

Kwfinder

এই তিনটি হলে সেরা key phrase analysis gear, যেগুলি অনেক ব্লগার বা ওয়েবসাইট মালিকেরা ব্যবহার করেন, লাভজনক কীওয়ার্ড খুঁজে বের করার জন্যে।

আমি ওপরে বলা তিনটির মধ্যে প্রত্যেকটি টুল (instrument) ব্যবহার করেছি যদিও, বর্তমান কেবল কিছু unfastened instrument এবং tactics ব্যবহার করে, আমার ব্লগের আর্টিকেলের জন্য লাভজনক কীওয়ার্ড খুঁজে বের করছি।

মানে, এমন অনেক unfastened key phrase analysis tactics এবং gear রয়েছে, যেগুলি আপনারা কোনো টাকা না দিয়েই ব্যবহার করতে পারবেন।

ফ্রীতে করুন কীওয়ার্ড রিসার্চ

আমার ব্লগের আর্টিকেলের জন্য successful key phrase concepts খোঁজার জন্য আমি নিচে দেয়া Four টি প্রক্রিয়া ব্যবহার করি।

এই Four টি মাধ্যমে আমি ফ্রীতে কীওয়ার্ড রিসার্চ করে, আমার ব্লগের প্রত্যেক আর্টিকেলের জন্য লাভজনক কীওয়ার্ড, বিষয় বা আর্টিকেল টপিক খুঁজে বের করি এবং কোন কীওয়ার্ড/বিষয় গুগল সার্চে কতটা জনপ্রিয় সেটাও বুঝতে পারি।

1. Google key phrase planner instrument

গুগলের এই ফ্রি টুল ব্যবহার করে আমি আমার প্রত্যেক আর্টিকেলের জন্য ভালো ভালো এবং গুগল সার্চে অধিক বেশি সার্চ হওয়া কীওয়ার্ড খুঁজে বের করি।

আমনারা ওপরে ছবিতে দেখতেই পারছেন, Google key phrase planner instrument এর seek field এ আমি একটি key phrase বা keyword লিখে সার্চ করাতে, টুলটি আমাকে দেখিয়ে দিলো যে, শব্দ বা বাক্যটি গুগলে মাসে কতবার সার্চ করা হয়।

আপনাকে আপনার সার্চ করা কীওয়ার্ড এর মাসের সার্চের সংখ্যা দেখানোর সাথে সাথে সেই কীওয়ার্ড টিতে “প্রতিযোগিতা (festival) কতটা কম বা বেশি, সেটাও দেখিয়ে দেয়া হয়।

ইংরেজির সাথে সাথে বাংলা কীওয়ার্ড, হিন্দি কীওয়ার্ড এবং আরো অন্যান্য ভাষার কীওয়ার্ড আপনারা এই টুলের মাধ্যমে রিসার্চ করতে পারবেন।

Location, language এর সাথে সাথে, কোন মাসে বা সময়ে key phrase টির চাহিদা কতটুকু ছিল, সবটাই জেনে নেয়া সম্ভব এই টুলের ব্যবহার করে।

তাছাড়া, এই টুলের আরো একটি গুন্ রয়েছে।

আপনার সার্চ করা শব্দ বা বাক্যের সাথে জড়িত (comparable) আরো অন্যান্য key phrases এবং গুগলে তাদের সার্চের পরিমান সবটাই দেখিয়ে দেয়। এতে, আপনি আপনার কন্টেন্টে টার্গেট করা কীওয়ার্ড এর সাথে জড়িত আরো লাভজনক key phrases যোগ করতে পারবেন।

আবার, ভবিষ্যতের নতুন নতুন আর্টিকেল লিখার জন্য লাভজনক key phrase concepts ও পেতে থাকবেন। Google key phrase planner টুল, গুগলের একটি ফ্রি সার্ভিস।

তাই, এই টুল ব্যবহার করার জন্য আপনার একটি Google account এর প্রয়োজন হবে।Software টিতে গিয়ে, “Uncover new key phrase concepts” অপশনে যেতে হবে।

তারপর, আপনি যেই key phrase নিয়ে analysis করতে চাচ্ছেন, সেটা লিখে নিচে “Get effects” অপশনে ক্লিক করতে হবে।

মনে রাখবেন, আপনি যদি বাংলা কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে চাচ্ছেন, তাহলে ভাষাটি “English” থেকে “Bangla” অবশই করে নিতে হবে।

2. Ubersuggest instrument

গুগলের কীওয়ার্ড প্ল্যানার টুল এর পর আমি পরামর্শ দিবো “Ubersuggest instrument” ব্যবহার করার।

কারণ, key phrase planner এর মতোই, এই টুল সম্পূর্ণ ফ্রি এবং যেকোনো কীওয়ার্ড গুগলে মাসে কতবার সার্চ করা হয়, তার সঠিক তথ্য আমাদের দিয়ে দেয়।

আপনারা ওপরে দেখতেই পারছেন, আমি “easy methods to get started a weblog” লিখে সার্চ করার পর, টুলটি আমাকে দেখিয়ে দিলো যে মাসে ৬০,৫০০ বার এই কীওয়ার্ড গুগলে সার্চ করা হয়।

তাছাড়া, search engine optimization problem ranking এর মাধ্যমে, কীওয়ার্ডটি ব্যবহার করে ট্রাফিক পাওয়াটা কতটা সহজ সেটাও আপনারা জেনেনিতে পারবেন।

মনে রাখবেন, search engine optimization problem ranking যতটাই কম হবে (20 থেকে কম হলে ভালো), সেই কীওয়ার্ড এর মাধ্যমে গুগলে আর্টিকেল রাংক (rank) করানোটা ততটাই সহজ হবে।

Quantity এর নিচে দেখতে পাচ্ছেন যে, কীওয়ার্ডটির প্রত্যেক মাস হিসেবে seek quantity দেয়া রয়েছে। মানে, বাক্যটি কোন মাসে গুগলে কতবার সার্চ হয়েছিল সেটাও আপনারা জেনেনিতে পারবেন।

এভাবে, এই ফ্রি টুল ব্যবহার করে আপনারা, যেকোনো key phrase, শব্দ বা বাক্য গুগল সার্চে কতবার সার্চ করা হচ্ছে, তার তথ্য পেয়ে যাবেন।

এবং, তার সাথে সাথে যেকোনো key phrase কত সহজে গুগলে রাংক (rank) করানো যেতে পারে সেটাও জেনেনিতে পারবেন search engine optimization problem ranking এর মাধ্যমে।

3 . Key phrase instrument

শেষে, ইংরেজি এবং বাংলা কীওয়ার্ড গুলি নিয়ে রিসার্চ করার আরো একটি লাভজনক টুল হলো “Key phrase instrument“.

ওয়েবসাইটটিতে গিয়ে প্রথম বাক্সে আপনি যেই কীওয়ার্ড নিয়ে তথ্য জেনেনিতে চাচ্ছেন সেটা টাইপ করতে হবে।

তবে, দ্বিতীয় বাক্সে আপনারা কীওয়ার্ড এর ভাষা বেঁচে নিতে পারবেন।

যদি ইংরেজি কীওয়ার্ড লিখছেন তাহলে ইংরেজি এবং যদি বাংলা কীওয়ার্ড নিয়ে রিসার্চ করছেন, তাহলে বাংলা ভাষা বেঁচে নিতে হবে।

মনে রাখবেন, আপনার সার্চ করা key phrase এর seek quantity, CPC এবং festival জানার জন্য আপনার টাকা দিতে হবে।

তবে, এই টুল আপনার আসল কীওয়ার্ড এর সাথে জড়িত comparable key phrases খোঁজার জন্য সেরা।

আপনি, আপনার আসল টার্গেট করা কীওয়ার্ড এর সাথে রিলেটেড (comparable) অন্যান্য অনেক শব্দ বা বাক্য পেয়ে যাবেন, যেগুলি নিজের কন্টেন্টে ব্যবহার করতে পারবেন।

ফলে, অনেক ধরণের keywords বা বাক্যের জন্য আপনার আর্টিকেল গুগলে rank করবে।

Key phrase instrument ব্যবহার করে খুঁজে বের করা সব ধরণের key phrase concepts গুলি গুগল সার্চে মাসে কতবার সার্চ করা হচ্ছে, সেটা আপনারা google key phrase planner বা ubersuggest instrument ব্যবহার করে জেনেনিতে পারবেন।

4. অন্যান্য মাধ্যমে কীওয়ার্ড রিসার্চ

Key phrase analysis করার gear ব্যবহার করে আর্টিকেলের জন্য নতুন নতুন ও লাভজনক কীওয়ার্ড বা বাক্য খুঁজে অবশই পাওয়া যায়।

এবং, প্রত্যেক প্রফেশনাল ব্লগাররা এই প্রক্রিয়া অবশই ব্যবহার করেন।

তবে, আরো কিছু অন্যান্য মাধ্যম রয়েছে, যেগুলি ব্যবহার করে আমরা লাভজনক এবং গুগলে অধিক সার্চ হওয়া keyword বা বাক্য গুলির ব্যাপারে জেনেনিতে পারি।

1. Google auto counsel

যখন আমরা গুগল সার্চে কোনো শব্দ বা কীওয়ার্ড লিখি, তথন গুগল আমাদের সেই কীওয়ার্ড বা শব্দের সাথে জড়িত অন্যান্য অনেক বাক্যের বা keywords এর পরামর্শ দেয়।

যেমন, আমি ওপরে কেবল “মোবাইল থেকে” কীওয়ার্ড টি লিখার পর, গুগল নিজে নিজে আমাকে সেই কীওয়ার্ড এর সাথে রিলেটেড আরো অনেক বাক্য, প্রশ্ন বা keyword দেখিয়ে দিলো।

এবং, অবশই গুগলের দ্বারা দেখানো এই ধরণের auto prompt keywords গুলি টার্গেট করে যদি আমি আর্টিকেল লিখি, তাহলে গুগল সার্চ থেকে প্রচুর ট্রাফিক ও ভিসিটর্স পাওয়ার সুযোগ আমার ব্লগের থাকবে।

কারণ, গুগল এই ধরণের auto counsel keywords কেবল তখন দেখায়, যখন লোকেরা সেই বাক্য বা কীওয়ার্ড গুলি লিখে গুগলে প্রচুর সার্চ করেন।

মানে, যেকোনো বাক্য, শব্দ, প্রশ্ন বা keyword গুগলে অনেক পরিমানে সার্চ করা হলে, গুগল সেগুলি তার auto prompt key phrase এ দেখায়।

তাই, এই ধরণের keyword নিয়ে আর্টিকেল লিখলে, অবশই গুগল থেকে ট্রাফিক পাবেন।

তাছাড়া, google key phrase planner instrument ব্যবহার করে, keyword গুলির সঠিক সার্চ ভলিউম (seek quantity) জেনেনিতে পারবেন।

বন্ধুরা, আজকে এই আর্টিকেলে আমরা শিখলাম যে, কীওয়ার্ড রিসার্চ কাকে বলে এবং কিভাবে করতে হয় কীওয়ার্ড রিসার্চ।

তাছাড়া, কীওয়ার্ড নিয়ে রিসার্চ করার জন্য কিছু ফ্রি টুলস (gear) এবং প্রক্রিয়ার ব্যাপারেও জেনেনিলাম।

শেষে, এটাই জানা বা শেখা গেলো যে, ব্লগে যেকোনো আর্টিকেল লিখার আগে কীওয়ার্ড নিয়ে রিসার্চ এজন্যেই করা হয় যাতে, আপনার আর্টিকেলে লিখা বিষয় বা টার্গেট করা কীওয়ার্ড গুগলে কতটা সার্চ করা হয় তার সঠিক তথ্য আপনার কাছে থাকে।

যদি আপনি আগের থেকেই জেনে থাকেন যে, আপনি যেই বিষয় নিয়ে আর্টিকেল লিখছেন, সেই বিষয়ে গুগল সার্চে মাসে কতটা সার্চ হচ্ছে এবং কীওয়ার্ড টি নিয়ে গুগলে রাংক করাটা কতটা সহজ হবে, তাহলে অবশই অনেক কম সময়ের মধ্যে আপনি গুগল থেকে প্রচুর ট্রাফিক পেয়ে যেতে পারবেন।

তাই, মনে রাখবেন যে, ব্লগিং এবং search engine optimization র দিকদিয়ে সব থেকে জরুরি এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো “Key phrase analysis” করাটা।

আজ এই পযন্ত। দেখা হবে পরবতী পোস্ট এ নতুন কোন বিষয় নিয়ে ততোক্ষণ ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন এবং আমাদের সাথেই থাকবেন।

ধন্যবাদ

The submit Key phrase Analysis কি ? কিভাবে কীওয়ার্ড রিসার্চ করতে হয় ?? seemed first on Trickbd.com.

[Hot] জাভার জন্য নিয়ে এলাম নতুন একটি ট্রিক যার মাধ্যমে কোন ঝামেলা ছাড়া Gp Flexi-plan এর প্যাক কেনা যাবে এবং সাথে থাকছে FlexiPlan App (100% Operating)

“বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম”
“আসসালামু আলাইকুম”

Hi! Buddies, আমার আজকের পোষ্টে আপনাদের সকলকে স্বাগতম জানাচ্ছি,,,,

তোমরা সকলে কেমন আছো? আশা করি সবাই ভালো আছো। *আমি আলহামদুলিল্লা আল্লাহর রহমতে এবং আপনাদের দোয়ায় ভালো আছি।

আজকের টপিক,

আজকে আমি আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর সমাধান নিয়ে
.
.
জাভাতে যারা অনলাইনে ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর ওয়েব ব্রাউজ করে এমবি এবং এসএমএস কিনতেন তারা আর এমবি এবং এসএমএস কিনতে পারছেন না। কারন, বর্তমানে এটা কাজ করে না বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বন্ধ করে দেওয়ার পরেও যারা ফ্লেক্সিপ্ল্যান এর হ্যাক লিংক দিয়ে এমবি এবং এসএমএস কিনতেন। সেটাও এখন আর কাজ করে না টাইম আউট দেখায়। *যার ফলে আপনারা এমবি এবং এসএমএস কিনতে পারছেন না।
.
.
আপনাদের এই সমস্যা দূর করার জন্য তাই আমি একটি ট্রিক বের করেছি যার মাধ্যমে আপনারা কোন ঝামেলা ছাড়াই এমবি এবং এসএমএস কিনতে পারবেন।
.
.
প্রথমে নিচের লিংকে যান
* Flexi Plan
*লিংকে ঢুকলে নিচের মতো একটি পেজ আসবে —

*যেখানে সকল প্রকার এমবি এবং এসএমএস প্যাক এর হ্যাক লিংক দেওয়া আছে।
.
আপনাদের সুবিধার জন্য পেজটি সেভ করে রাখতে পারেন।
.
আপনারা যে প্যাক কিনতে চান সেই লিংকে আগে ঢুকবেন দেখবেন লেখাগুলো অপরিষ্কার দেখাচ্ছে এবং এই অবস্হায় নম্বর দিয়ে প্যাক কেনা যায় না টাইম আউট দেখায়। এটি কাজ করার ট্রিকটি হলো আপনার ফোনের 1 বাটন টিপে Cellular View করে দিন ( Telephone Opera & Opera 4.4 , 4.five এর ক্ষেত্রে)

.
*দেখুন এখন সব পরিষ্কার দেখাচ্ছে,,,,

.
এরপর নম্বর দিয়ে Proceed দিন।

.
আপনার ফোনে একটি পিন কোড আসবে সেটা বসিয়ে দিয়ে Purchase Now দিন। আর দেখুন প্যাক কেনা হয়ে গেছে Request Successfull দেখাবে।


.
Gp Flexi-plan এর সকল হ্যাক Your-Plan লিংক নিয়ে তৈরি ফ্লেক্সিপ্ল্যান অ্যাপ ডাউনলোড করতে নিচের লিংকে যান
* Obtain Flexi-plan App

**পোষ্ট টি ভালো লাগলে অবশ্যই অবশ্যই লাইক এবং কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। *আপনাদের লাইক, কমেন্ট না পেলে পোষ্ট করার উৎসাহ পাওয়া যায়। তাই আপনাদের উচিত লাইক কমেন্ট করে উৎসাহ জাগানো
.
#
**আজকের মতো বিদায় নিচ্ছি ভালো থাকবেন। নিয়মিত পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করবেন।

,,,,আল্লাহ্ হাফেজ,,,,,
তো আজকের মতোন এখানেই শেষ করছি।
ভালো থাকুন শুস্থ থাকুন আমাদের সাথেই থাকুন।
পোস্টটি কেমন লাগল তা জানাতে এবং কোথাও
কোন সমস্যায় পড়লে কমেন্ট করতে কিন্তু
ভুলবেন না।
তাহলে ভাই ভালো থাকুন
সুস্থ থাকুন Trickbd এর সাথে থাকুন।ধন্যবাদ ।


এই ধরনের আরো অনেক পোস্ট
পেতে আমার সাইটে ভিজিট করুন

The publish [Hot] জাভার জন্য নিয়ে এলাম নতুন একটি ট্রিক যার মাধ্যমে কোন ঝামেলা ছাড়া Gp Flexi-plan এর প্যাক কেনা যাবে এবং সাথে থাকছে FlexiPlan App (100% Operating) seemed first on Trickbd.com.

কম্পিউটার ডিপার্টমেন্টের বুকলিস্ট পলিটেকনিক স্টুডেন্টদের জন্য | Pc Division Booklist for Polytechnic Scholars

আসসালামু আলাইকুম । আশা করি ভালো আছেন । কারণ TrickBD.Com এর সাথে থাকলে সবাই ভালো থাকে । আর আপনাদের দোয়ায় আমি ও ভালো আছি । তাই আজ নিয়ে এলাম আপনাদের জন্য আরেক টা নতুন টিপস । আর কথা বাড়াবো না কাজের কথায় আসি ।

কম্পিউটার ডিপার্টমেন্টের স্টুডেন্টদের বুকলিস্টঃ

প্রতি সেমিস্টারের শুরুতে আপনারা বুকলিস্ট খুঁজেন। তাই আপনাদের কষ্ট কমাতে আজ আমি কম্পিউটার ডিপার্টমেন্টের সকল সেমিস্টারের বুকলিস্ট নিয়ে আসলাম।
—————————————————————————-
1st Semester
—————————————————————————-

  1. (65911) Arithmetic‐1
  2. (66611) Pc software
  3. (65912) Physics‐1
  4. (66712) Electric engineering basics
  5. (65712)English
  6. (65812) Bodily schooling & existence talents construction
  7. (65711 ) Bangla
  8. —————————————————————————-
    second Semester
    —————————————————————————-

    1. (66621) Database Software
    2. (65921) Arithmetic-2
    3. (66622) IT enhance Device-I
    4. (65922) Physics-2
    5. (66623) Graphics Design-I
    6. (65722) Communicative English
    7. (66823) Analog Electronics

    —————————————————————————-
    third Semester
    —————————————————————————-

    1. (66631) Programming Necessities
    2. (65931) Arithmetic‐3
    3. (66632) Internet Design
    4. (65913) Chemistry
    5. (66633) Graphics design‐II
    6. (65811) Social Science
    7. (66634) IT enhance Device‐II

    —————————————————————————-
    4th Semester
    —————————————————————————-

    1. (66641) Object-Orientated Programming
    2. (66643) Internet Building
    3. (66642) Knowledge Construction & Set of rules
    4. (66645) Pc Peripherals
    5. (66644) Knowledge Communique Device
    6. (65841) BusinessOrganization&Communique
    7. (66842) The primary of Virtual Electronics

    —————————————————————————-
    fifth Semester
    —————————————————————————-

    1. (66651) Programming in Java
    2. (66653) Surveillance Safety Device
    3. (66654) Internet Building Challenge
    4. (66652) Running Techniques software
    5. (66656) PCB Design and Circuit Making
    6. (65851) Accounting Idea & Apply
    7. (66655) Sequential Common sense Device

    —————————————————————————-
    sixth Semester
    —————————————————————————-

    1. (66661) Principals of Instrument Engineering
    2. (66663) Microcontroller Software
    3. (66662) Microprocessor & Interfacing
    4. (6666X) Non-compulsory Matter
    5. (66664) Database Control Device
    6. (65852) Business Control
    7. (64054) Environmental Research

    —————————————————————————-
    seventh Semester
    —————————————————————————-

    1. (66671) Device Research & Design
    2. (66674) E‐Trade & CMS
    3. (66672) NetworkAdministration&Products and services
    4. (66675) Cyber Safety & Ethics
    5. (65853) Innovation & Entrepreneurship
    6. (66673) Apps Building Challenge
    7. (6667X) Non-compulsory Matter‐II

    এখন থেকে পলিটেকনিকের সকল আপডেট আপনারা TrickBD.com এর মাধ্যমে পেয়ে যাবেন ইনশাআল্লাহ।

    পলিটেকনিক সম্পর্কে যেকোন তথ্য জানতে ফেসবুকে নক করতে পারেন অথবা কমেন্ট করতে পারেন 🙂


    পোস্টটি সর্বপ্রথম ITJano তে প্রকাশিত হয়। ITJano তে পোস্ট করলে প্রতি পোস্টের জন্য ৫ টাকা করে পাবেন 🙂


  9. তে ভাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন আর ট্রিকবিডির সাথেই থাকবেন 😀
  10. The put up কম্পিউটার ডিপার্টমেন্টের বুকলিস্ট পলিটেকনিক স্টুডেন্টদের জন্য | Pc Division Booklist for Polytechnic Scholars gave the impression first on Trickbd.com.